January 22, 2018 11:41 pm

আসুন গরীবকে হাসাই নিজেও হাসি – ঈদে

ঈদ, প্রতিবছর ১ মাস রোজা রাখার পর ঈদ আসে। ঈদে আমরা কত আনন্দ করি, কেউ কেউ আবার জড়িয়ে পড়ি আনন্দ কার থেকে কে বেশি করব তার প্রতিযোগিতায়। কিন্তু আমাদের আশেপাশেই অনেক গরীব আছে, অনেক পথ শিশু আছে, যাদের ঈদ বলতে কিচ্ছু নেই, শুধু হা করে তাকিয়ে থাকা আদরের দুলাল আর দুলালীর দিকে।

আসুন গরীবকে হাসাই নিজেও হাসি - ঈদে
আমাদের মধ্যে অনেকেই এমন গরীব, পথশিশুদের পাশে দাড়ান। অনেকে ইভেন্ট করে ঈদে পথশিশু দের কাপড় চোপড়ের ব্যাবস্থা করে
দেন, আবার অনেকে ব্যাক্তিগত ভাবে, পারিবারিক ভাবে, সামাজিক ভাবে ও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেই। সালাম এমন সকল সৈনিকদের।

আমরা তো সারা বছরই কম বেশি আনন্দ করি, আমরা কি পাড়িনা গরীব শিশদের সাথে, পথশিশু দের সাথে আমাদের ঈদ আনন্দ শেয়ার করতে? অনেকে বলবেন আমি ছাত্র, আমি বেকার, আমার করার ক্ষমতা নাই। শুধু কি টাকা দিয়ে করা যায়! এছাড়া ও তো অনেক পথ খোলা আছে।

ধরুন, আপনার একটা মোবাইল আছে, পরিদিনই তো ইউজ করেন, ঈদের দিন না হয় কোন পথশিশুকে
ডেকে এনে মোবাইলে গেইম খেলতে দিলেন, সে কি খুশি হবে না!

আপনি প্রতিদিন ফাস্টফুড এর দুখানে খেতে যান, আজ নিজে না খেয়ে হয়তো একজন পথশিশু কে খাওয়ালেন, অথবা পথশিশু এর সাথে শেয়ার করে খেলেন, এতে কি সে খুশি হবে না?

আপুরা প্রতিদিন বয়ফ্রেন্ডকে কত জাড়ি দেন ফুসকা খাবার জন্য, চটপটি খাওয়ার জন্য, ঈদের দিন একটা পথশিশুকে ফুসকা/চটপটি খাওয়ানোর জন্য কি ঝারি দিতে পারেন না? পথশিশু ফুসকা খেলে কি খুশি হবেনা, তার মুখে হাসি ফুটে উঠবে না??

ঈদের দিন এমন কত কিছুই না করেন, আমরা চাইলে কি আমাদের আনন্দটুকুতে একটু ভাগ দিতে পারিনা
গরীবদের? পারিনা এক দিনের জন্য হলেও ওদের মুখে হাসি ফুটাতে?

ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি, আসুন না ঈদের আনন্দ টা গরীব দুঃখী সবার সাথে শেয়ার করে, ঈদের প্রকৃত অর্থের বাস্তবায়ন করি।

আমরা পারব গরীব মানুষের মুখে হাসি ফুটাতে,ইনশা’আল্লাহ।

Comments