January 23, 2018 11:47 pm

একটি হৃদয়ের ভালবাসার গল্প

এক দেশে ছিল এক রাজা । তার ছিল প্রচুর সৈন্য সামন্ত । নাম ছিল তার রক্ত । তার পরিবহণ মন্ত্রনালয়ে ছিল RBC, প্রতিরক্ষা মন্ত্রনালয়ে ছিল WBC , আর তঞ্চন সংক্রান্ত মন্ত্রনালয়ে ছিল অনুচক্রিকা । তার রাজ্যের অর্থনীতির তারল্যের মান বজায় রাখতো প্লাজমা । তার খুব সুন্দরী আর খুব ভাল মনের একটা রাণী ছিল । নাম ছিল অক্সিজেন । রাণীর মন যেহেতু ভাল ছিল তাই তাদের প্রধান ঘর টা মনেই ছিল । হ্যাঁ! বন্ধুরা তাদের ছিল হৃদয় নামের একটি বিশাল প্রাসাদ । যার প্রতি পাশে অলিন্দ আর নিলয় নামে অনেক সুন্দর দু’টি করে ঘর ছিল । ,,,

তো রাজা তার রাণী আর সৈন্য সামন্ত সহ রাজ্য ভ্রমণে বের হতেন । সবার অবস্থা পর্যবেক্ষণ করতেন । রাজ্যের প্রজাদের সবার ঘর ছিল । যে ঘরকে সবাই আদর করে কোষ বলে ডাকতো ।

love-1সুন্দর মনের অধিকারী হওয়ার কারণে সব কোষ রাণী অক্সিজেন কে তাদের ঘরে নিয়ে আপ্যায়ন করতে চাইতো । রাণীর প্রতি সবার এত ভালবাসা দেখে রাজাও মনে মনে খুশিই হতেন। কিন্তু এভাবে ঘুরতে ঘুরতে রাজা হঠাৎ লক্ষ্য করেন যে কোথাও রাণী নেই । তার পাশের আসনে
রাণীর বদলে বসে আছে কুৎসিত কার্বন ডাই অক্সাইড । যে কিনা রাজার জাত শত্রু । রাজা চরম উত্তেজিত হয়ে যান । বন্দী করা হয় তাকে । তারপর আবার তারা তাদের প্রাসাদে ফিরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন ।

প্রাসাদে প্রবেশের জন্য উপর থেকে সুপিরিয়র ভেনাকেভা আর নিচ থেকে ইনফিরিয়র ভেনাকেভা নামক দু’টি রাস্তা রয়েছে । রাজা প্রাসাদে ঢুকেই ডান অলিন্দ চেক করেন । না। ওখানে রাণী নেই । তাতপর তিনি যান ডান নিলয়ে । কিন্তু এবারো তিনি ব্যর্থ । অবশেষে গোয়েন্দা সূত্রে খবর পান যে রাণীকে ফুসফুসে
আটকে রাখা হয়েছে । রাজা পালমোনারী ধমনী দিয়ে অতি দ্রুত যান সেখানে রাণীকে উদ্ধার করতে । রাণীকে
সেখানে পেয়ে, কার্বন ডাই অক্সাইড এর প্রতি রাজার দয়া হয় ।

দিল দরিয়া রাণীর রাজাও যে দিল দরিয়া । ছেড়ে দেন কার্বন ডাই অক্সাইড কে। তারপর তারা পালমোনারী শিরা দিয়ে বাম অলিন্দে ফিরে আসেন । রাজার দায়িত্ব । অনেক বড় দায়িত্ব । রাজ্য ভ্রমণ আবার জরুরী হয়ে পরে।

তাই প্রস্তুতির জন্য তারা বাম নিলয়ে যান। সেখান থেকে এওর্টা নামক রাস্তা দিয়ে তারা আবার বের হবেন। এভাবেই চলতে থাকে তাদের সুখের সংসার ।
ভালবাসার গল্প । একটি হৃদয়ের ভালবাসার গল্প। (this is all about systemic and pulmonary circulation)
Happy Biology …

Comments