January 22, 2018 12:26 pm

পুরোনো কম্পিউটার কাজ করবে নতুন ভাবে ! কী ভাবে ?

আমরা অনেকেই কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু একটি নির্দিষ্ট সময় পরে কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা কমে যায়। কম্পিউটারে আর দ্রুত কাজ করা যায় যদি কিছু নিয়মাবলী মেনে চলা যায়। আপনার কম্পিউটার এর কার্যক্ষমতা ঠিক রাখার জন্য সপ্তাহে একবার অন্তত কিছু কাজ করতে হয়। এগুলো নিম্নে আলোচনা করা হলোঃ–

Computer help tips• hard disk ডিফ্র্যাগমেন্ট করা। এজন্য প্রথমে স্টার্ট মেনুতে ক্লিক করে অল প্রোগ্রাম এ ক্লিক তারপর accessoriseএ ক্লিক করে system tools এ ক্লিক করে disk defragmenter এ ক্লিক করতে হবে। এরপর ড্রাইভ সিলেক্ট করে defragment এ ক্লিক করলেই ডিফ্র্যাগমেন্ট শুরু হবে । ডিফ্র্যাগমেন্ট শেষ হলে close করে বের হয়ে আসতে হবে।

• কম্পিউটার প্রতি সপ্তাহে অন্ত্যত একবার ভাইরাস স্কেন এর software দ্বারা স্কেন করতে হবে। অনেকে ইন্টারনেট use করেন না তারা মনে করে ইন্টারনেট ব্যবহার না করতে ভাইরাস আসে না, তাই তারা ভাইরাস স্কেন করে না কিন্তু তাদের এই ধারনা ঠিক নয়। ভাইরাস ইন্টারনেট ব্যবহার করা ছাড়াও আসতে পারে। আর ভাইরাস স্কেনের ফলে কম্পিউটারের সকল ফাইল চেক করা হয় এতে করে কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা ঠিক থাকে।

• hard disk প্রতি সপ্তাহে একবার স্ক্যান ডিক্স চালালে কম্পিউটার ভালো থাকে। এতে কম্পিউটারের কাজ করার ক্ষমতা স্বাভাবিক থাকে। এজন্য আপনার সব ড্রাইব একবার করে স্ক্যান ডিস্ক চালান। এতে করে ব্যবহারকারীর হার্ডডিস্কের প্রতিটি সেক্টর একবার করে দেখা হয়।
এজন্য আপনাকে My Computer এর ভিতরে একটি ড্রাইভ এর রাইট বাটন ক্লিক করে properties সিলেক্ট করলে একটি Windows এখান থেকে Tools সিলেক্ট করে Check Now… অপশন এ ক্লিক করে Automatically fix file system errors এ টিক চিহ্ন দিয়ে Start এ ক্লিক করুন। Start এ ক্লিক করলে কাজটি চালু হবে। আর যদি চালু না হয়ে The disk check could not be performed because the utility needs exclusive access to some windows files on the disk. These files can be accessed by restarting windows. Do you want to schedule this disk check to occur next time you restart the computer? এই মেসেজ দেখালে Yes ক্লিক করুন। তাহলে পরবর্তী সময়ে কম্পিউটার চালুর সময় কাজটি করলে। আর মেসেজ না দেখালে কাজ করলে কাজ শেষ হলে Ok দিন। এভাবে প্রতিটি ড্রাইভ স্ক্যান করে নিন।

[1] কম্পিউটারকে সবসময় নতুনের মত রাখতে চাইলে আপনারা একটি Softwer কিনতে পারেন। এটি হলো System Mechanic Pro 5.0c Software। বাজারে System Mechanic Pro 5.0c Softwer সফটওয়্যারটি কিনতে পাওয়া যায়। এই সফটওয়্যার দ্বারা আপনার কম্পিউটারের system junk ফাইল ডিলেট করা যায়। Registry problem fix করা যায়। Delet Data Recover করা যায়। পিসির সম্পূর্ণ কার্যক্ষমতা ও কার্যগতি ঠিক রাখার জন্য এখানে রয়েছে pc Maintenance wizard যা প্রতি সপ্তাহে একবার করলে কম্পিউটার এর স্পিড বাড়ে। এছাড়াও রেম defragment করা, ইন্টারনেট এর স্পিড বাড়ানো, হার্ড ডিস্ক defragment করা যায়। এছাড়াও এটি দ্বারা Delete file data গুলো Delete করা যায়। সব মিলিয়ে System Mechanic Pro 5.0c Softwer টি অনন্য।

[2] অনেকে অল্প মানের রেম ব্যবহার করেন কিন্তু একটি গেম কিনে দেখলেন আর বেশি রেম চেয়েছে তখন আপনি আপনার রেমটি দ্বিগুণ করে গেমটি খেলতে পারবেন। এজন্য যা করতে হবে প্রথমে My Computer উপর রাইট বাটন ক্লিক করুন তারপর properties চাপুন properties থেকে advanced চাপুন তারপর performance এর আন্ডারের settings ক্লিক করুন এবার performance options এর আন্ডারের advanced ক্লিক করুন এবার virtual memory এর change ক্লিক করুন এবার দেখুন অনেক গুলো ড্রাইভের নাম দেখাচ্ছে এখান থেকে যে ড্রাইভে আপনার xp set up দেওয়া আছে সেটি সিলেক্ট করুন। custom size এর Initial size (MB) বক্স এ 128 অথবা আপনার যত Maximum size (MB) বক্স এ 256 অথবা আপনার রেমটি দ্বিগুণ লিখে Set এ ক্লিক করে Ok দিন। আবার Ok দিন এবার কম্পিউটার রিস্টাড করুন। এবার আবার My Computer উপর রাইট বাটন ক্লিক করুন তারপর properties চাপুন properties থেকে advanced চাপুন তারপর performance এর আন্ডারের settings ক্লিক করুন এবার performance options এর আন্ডারের advanced ক্লিক করুন এবার virtual memory তে গিয়ে দেখুন আপনার র্যাম দ্বিগুণ দেখাচ্ছে কিনা। যদি দেখায় তা হলে হয়ে গেছে আর যদি যত রেম তত দেখায় তাহলে change ক্লিক করুন এবার দেখুন অনেক গুলো ড্রাইভের নাম দেখাচ্ছে এখান থেকে যে ড্রাইভে আপনার xp set up দেওয়া আছে সেটি সিলেক্ট করুন। custom size এর Initial size (MB) বক্স এ 256 অথবা আপনার যত রেম এর দ্বিগুণ Maximum size (MB) বক্স এ 384 অথবা আপনার রেমের দ্বিগুণ থেকে 128 বেশি লেখুন এবার Set এ ক্লিক করে Ok দিন। আবার Ok দিন এবার কম্পিউটার রিস্টাড করুন। এবার দেখুন আপনার রেম দ্বিগুণ হয়ে গেছে। এবার পরীক্ষার জন্য যে পরিমাণ রেম বাড়ালেন সে পরিমাণ বেশি রেম চেয়েছে এমন গেম Set up দিয়ে খেলুন।

[3] বাজারে অনেক গেম বা program file বা Dictionary এর সিডি সব সময় সিডি রম এ দিয়ে কাজ করতে হয়। এতে করে এক দিকে যেমন সিডি রম ব্যবহার করার ফলে নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা থাকে অন্যদিকে এক সিডি অন্য কেউ ব্যবহার করতে পারে না। এই সমস্যা সমাধান করা যায় Virtual drive 9.0 সফটওয়্যার দ্বারা। এটি যে কোন সফটওয়্যারের সিডি বা দোকানে পাওয়া যায়। প্রথমে এটি ইনষ্টল করে নিতে হবে।ইনষ্টলের পর দেখুন সিডি রম এর পাশে এবং desktop এ Virtual drive 9.0 এর আইকন এসেছে। এবার Virtual Drive Manager আইকনটি ওপেন করুন। এবার যে সিডিটি সেটাপ দিবে সেটি সিডি/ডিভিডি ড্রাইভে প্রবেশ করান। এবার Virtual Drive Manager থেকে Make Image এ ক্লিক করুন তারপর Next চাপুন এবার যে সিডিটি প্রবেশ করেছেন তার হুবুহু এক কপি সেভ করার জায়গা দেখিয়ে দিন। এবার Next চাপতে থাকুন সিডিটি কপি হওয়া পযন্ত অপেক্ষা করুন। কপি হয়ে গেলে Virtual Drive Manager বন্ধ করে সিডি বের করে ফেলুন। এবার My Computer ওপেন করে Virtual Drive এর উপর রাইট ক্লিক করে Insert>Virtual Drive> যে সিডিটি সেভ করেছেন সেটি দেখা যাবে সেটি সিলেক্ট করে Ok দেন। এবার সিডিটি সেট আপ দিয়ে গেম অথবা প্রোগ্রামটি খেলুন। খেলা শেষে My Computer ওপেন করে যে গেমটি খেলেছেন তার একটি সিডি My Computer এ শো করবে। সে সিডিটির উপর ডাইট ক্লিক করে eject চাপুন।

[4] My Computer এর ভিতরে অন্যান্য ড্রাইভের সাথে control panel আনার জন্য প্রথমে tools>Folder options>view>Show Control panel in My computer এর টিক চিহ্ন টি দিন। এবার Ok দেন।

[5] Windows Media Player 10 এ ভিডিও গান দেখে দেখে যে কোনো কাজ করা যায়। এজন্য taskbar এ right বাটন ক্লিক করে toolbars থেকে Windows Media Player সিলেক্ট করুন। এবার যে কোন ভিডিও গান ছেড়ে তা minimize করুন।

[6] taskbar থেকে একনজরে আপনার কম্পিউটারের কোথায় কি আছে সব দেখতে পারবেন এবং সেই জায়গায় যেতে পারবেন। এজন্য taskbar এ right বাটনে ক্লিক করে toolbars থেকে desktop সিলেক্ট করুন। এবার দেখুন taskbar এর ডানদিকে একটি এরো কী এসেছে এটিতে মাউস নিয়ে আপনি কম্পিউটারের যে কোন ড্রাইভে যেতে পারবেন। এটি নিষ্কিয় করতে চাইলে একই পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে।

[7] কম্পিউটার শুরু আর শেষের সময় যে সাউন্ড দেয় ইচ্ছা করলে আপনি তা পরিবর্তন করতে পারবেন। আপনার কাছে যদি আপনার কোন প্রিয় গানের theme/song থাকে প্রথমে তা কপি করুন। এবার C:\WINDOWS\ Media ফোল্ডারে paste করুন। এবার দেখুন Windows XP Shutdown এবং Windows XP Startup নামের কিছু theme আছে। এগুলো কাট করে অন্য জায়গার কোন ফোল্ডারে রাখুন। এবার যে গানটি আপনার কম্পিউটার শুরুর সময় দরকার তাকে rename করে Windows XP Startup দিন এবং বন্ধের সময় যেটি রাখতে চান সেটিকে rename করে Windows XP Shutdown দিন। এবার কম্পিউটার বন্ধ বা শুরুর সময় আপনার পছন্দের tone শোনাবে। এভাবে অন্যান্য tone-ও পরিবর্তন করতে পারবেন।

[8] অনেকে UPS ব্যবহার করেন। এর সঠিক ব্যবহার না করলে কম্পিউটারে মাঝে মাঝে না সমস্যা হতে পারে। অনেকে মনে করে কম্পিউটার চললেই UPS চার্জ হতে থাকে, তাই অনেকেই UPS চার্য দেন না। কিন্তু কম্পিউটার চলন্ত অবস্থায় UPS চার্য হয়না। তাই আপনাকে কম্পিউটার বন্ধের পরও অন্তত 10-15 মিনিট চার্য দেওয়া প্রয়োজন। আর কারেন্ট চলে গেলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কম্পিউটার বন্ধ করে দিবেন এতে করে আপনার UPS অনেকদিন সার্ভিস দিবে। অনেক দিন UPS ব্যবহার না করলে UPS নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা থাকে। তাই অনেকদিন পর UPS ব্যবহার করার পূর্বে এটি চার্য করে তারপর এটি ব্যবহার করাই শ্রেয়। অনেকে অনেক দামি UPS ব্যবহার করেন তবে যারা নতুন UPS কিনতে আগ্রহী তারা কম দামী যে কোনো UPS ব্যবহার করতে পারেন। কারণ সকল UPS আপনাকে 15-25 মিনিট বেকআপ দিবে। আর UPS নষ্ট হলেও তা মেরামত করে ব্যবহার করা যায়।

[9] যদি আপনার কী–বোর্ডটি নষ্ট হয়ে যায় আর যদি নতুন কী–বোর্ড কিনতে না পারেন তা হলে চিন্তা কি! কী–বোর্ড ছাড়াই আপনি শুধু মাউস দিয়ে ক্লিক করে আপনার কম্পিউটার পরিচালনা করতে পারবেন। এজন্য প্রথমে Start>All Programs>Accessories>Accessibility>On-Screen Keyboard এ ক্লিক করুন। এবার মনিটরে যে কী–বোর্ডটি এসেছে তাতে ক্লিক করে আপনি আপনার কাজ করতে পারবেন। এটি ব্যবহার করতে আপনার xp services pack 2 setup দেয়া থাকলে এই কাজটি করতে পারবেন।

[10] অনেক সময় কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায় এবং কোনো কাজ তখন করা যায় না। যদি কখনো এমন হয় তখন Ctrl + Alt + Delete একসাথে চাপুন। এবার Windows
Task Manager বক্স থেকে Applications এ ক্লিক করে যে program গুলো দেখাচ্ছে তা সিলেক্ট করে End Task ক্লিক করুন।

[11] আপনার কম্পিউটারের গ্রাফিক্স কার্ড/AGP Card কত তা জানতে Desktop এর রাইট বাটন ক্লিক করে properties এ ক্লিক করে setting থেকে Advanced থেকে Adapter এ ক্লিক করে Adapter information এ Memory size দেখাবে আপনার কম্পিউটারের গ্রাফিক্স কার্ড/AGP Card ।

[12] যারা ডায়াল আপ ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তারা ইন্টারনেটের কার্ড কিনার সময় একটু ভেবে কিনুন। কারণ ইন্টারনেট কার্ড বিভিন্ন ধরণের হয়ে থাকে। যেমনঃ রেগুলার, আন–লিমিটেড ইত্যাদি। রেগুলার কার্ড দ্বারা সাধারণত 50 টাকার কার্ড দিয়ে 100-120 মিনিট ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। আর যদি আপনি আন–লিমিটেড 100 টাকার একটি কার্ড কিনেন তাহলে আপনি পাবেন 30 ঘন্টা ব্যবহারের সুবিধা অনেকে এটি জানেনা বিধায় আন–লিমিটেড কার্ড ক্রয় করেন না। তাই কার্ড কেনার সময় আন–লিমিটেড কার্ড ক্রয় করাই ভাল। সাধারণত Gobal link এর Anytime 100 এ 30 ঘন্টা/Anytime 200 এ 75 ঘন্টা ইন্টারনেট ব্যবহার করা যাবে। তাছাড়া এর কানেক্ট টাইম ও স্পিড অন্যান্য আন–লিমিটেড কার্ড থেকে ভাল।

Comments