January 21, 2018 6:56 am

গণধর্ষণের শাস্তি ৩০ মণ গম

গণধর্ষণের শাস্তি ৩০ মণ গম

গণধর্ষণের শাস্তি ৩০ মণ গম

পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশে ওমেরকোট জেলায় ১৪ বছরের এক কিশোরীকে গণধর্ষণের শাস্তি হিসেবে ৩০ মন গম জরিমানা করেছে স্থানীয় গ্রাম্য মাতব্বর। খবরে বলা হয়, কিছুদিন আগে এই ঘটনায় কিশোরীর ভাই বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার অভিযোগের ভিত্তিতে কয়েকজন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। কিশোরীর বাবা জানান, থানায় অভিযোগ দায়েরের পর প্রধান সন্দেহভাজনসহ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারপরই গ্রাম্য মাতব্বরেরা বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য উঠেপড়ে লেগেছেন।
তারা ওই এলকার স্থানীয় নিয়ম ‘জিরগা’র মাধ্যমে বিষয়টি মীমাংসা করেন। ধর্ষকদের ১২০০ কেজি গম জরিমানাও করা হয়। স্থানীয় প্রভাবশালী ভূমি মালিকের মাধ্যমে ওই ‘জিরগা’ পদ্ধতিতে বিচার কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয় বলে জানান তিনি। তবে এই বিচার মানতে অস্বীকৃতি জানালে ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীর পরিবারকে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দেয়া হয়। বিষয়টি স্থানীয় বিভিন্ন গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হলে মামলা তুলে নিতে ওই কিশোরীর পরিবারকে চাপ দেয়া হয় বলে জানান কিশোরীর বা।

এদিকে মিরপুরকাশ জেলার ডিআইজি জাভেদ আলম ঘটনা সম্পর্কে অবগত হয়ে সিনিয়র এসপিকে বিষয়টি তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে ভুক্তভোগি পরিবারকে নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। গুলাম নবী শাহর স্টেশন অফিসার আরিফ ভাট্টি জানিয়েছেন, পাকিস্তান পেনাল কোড ৩৪ এবং ৩৭৬ (২) সেকশনের অধীনে স্থানীয় থানায় গত ২১ মার্চ মামলাটি নথিভুক্ত করা হয়েছে। পুলিশ ইতিমধ্যেই প্রধান সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে স্থানীয় থানা জানিয়েছে, এরকম কোনো ‘জিরগা’ সালিশের ঘটনা ওই এলাকায় ঘটেনি। প্রসঙ্গত, ‘জিরগা’ ব্যবস্থা পাকিস্তানের আদালত অবৈধ ঘোষণা করেছে অনেক আগেই। তবে কিছু গ্রাম্য এলাকায় এখনও এই পদ্ধতিতে বিচার কাজ পরিচালিত হয়।

Comments