January 23, 2018 8:10 pm

চালক ও পেসেঞ্জার মজার হাসির কৌতুক 2

দজ্জাল……

স্ত্রীঃ তোমার বন্ধু যাকে বিয়ে করতে যাচ্ছে সে মেয়েটা কঠিন দজ্জাল। তাকে বারন করো।
স্বামীঃ কেন বারন করবো? সে কি আমার সময় বারন করেছিল?

তুই গাধা……
আলাল দুলালকে জিজ্ঞেস করছে, “কিরে, তুই নাকি গতকালকে সবার সামনে স্বীকার করেছিস তুই গাধা”?
দুলাল বলল, “না, স্যার ক্লাসে এসে বললো কে কে গাধা দাড়াও?”
আলাল, “তারপর?”
দুলাল, “স্যার একা দাঁড়িয়ে ছিলোতো তাই ভালো দেখাচ্ছিলো না। তাই আমিও দাঁড়ালাম।

জোতিষী……
একদিন এক ব্যাঙ ভাগ্য পরীক্ষা করার জন্য জোতিষীর কাছে গেলো।
জোতিষী তাকে বললো : খুব শীঘ্রই এক সুন্দরী মেয়ের সাথে তোমার দেখা হবে। মেয়েটি তোমার সম্পর্কে সবকিছু জানে।
ব্যাঙ: চমৎকার! তার সঙ্গে আমার কোথায় দেখা হবে? পার্টিতে নাকি অন্য কোথাও?
জোতিষী : না! মেয়েটির বায়োলজি ক্লাশে।

স্ত্রী তার বান্ধবীর উদ্দেশ্য….
স্ত্রীঃ জানিস, আমি আমার স্বামীকে আজও তেমনি ভালবাসি যেমন ভালবাসতাম আমাদের বিয়ের প্রথম দিন থেকে।
বান্ধবীঃ তাই? কিন্তু তোকে যে একটু আগেই দেখলাম ওর সাথে ঝগড়া করছিস।
স্ত্রীঃ সেটা তো আমরা বিয়ের প্রথম দিনও করেছিলাম!

খোরগোশ…..
একদিন রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে এক খোরগোশ হঠাৎ রাস্তার মাঝখানে দেখে এক ভাল্লুক শুয়ে আছে। খোরগোশ জিজ্ঞেস করছেন স্যার রাস্তার মাঝখানে এভাবে শুয়ে আছেন কেন? ভাল্লুক তখন কাতরাতে কাতরাতে খোরগোশকে বলছে আমাকে এক শিকারী গুলি করেছে আর গুলিটা লেগেছে আমার পায়ে তাই হাঁটতে পারছিনা। তুমি কি আমাকে একটু সাহায্য করতে পারো? খোরগোশ তখন গর্জে উঠে বললো তবেরে হারামজাদা শুয়ে থাকবি রাস্তার মাঝখানে কেন? জলদি রাস্তা ক্লিয়ার কর।

ব্যাঙ নিয়ে গবেষণা……
ব্যাঙ নিয়ে গবেষণা করছিলেন এক অধ্যাপক। টেবিলের ওপর ব্যাঙটা রেখে প্রথমে তিনি ব্যাঙের পেছনের ডান পা-টা কাটলেন। পা কেটে একটা তালি দিলেন। সঙ্গে সঙ্গে ব্যাঙটা লাফিয়ে উঠল। এরপর পেছনের বাঁ পা কেটে একটা তালি দিলেন। ব্যাঙটা আবার লাফিয়ে উঠল। এরপর সামনের ডান পা কাটলেন এবং তালি দিলেন। ব্যাঙটা এবারও লাফিয়ে উঠল। সবশেষে নিপুণ হাতে কাটলেন সামনের বাঁ পা। কাটা শেষে যথারীতি তালি দিলেন, কিন্তু এবার ব্যাঙ আর লাফাল না।
কাটাছেঁড়া শেষ করে অধ্যাপক তাঁর থিসিসে লিখলেন, চার পা কেটে দিলে ব্যাঙ কানে শোনে না।

Comments