January 23, 2018 8:09 pm

‘তুমি’ সমগ্র || অয়ন চক্রবর্তী

 

তোমার মুখের দিকে আমি চেয়ে থাকি সব সময়,
যখন জেগে থাকি, তখন অর্জুনের তীরের মতো চোখ স্থির করে রাখি তোমার দিকে,
যখন ঘুমোই, তখন তোমার অধর সুধা পান করে আমার আঁখি-নীলাম্বর ।

তুমি সেই গোত্রের-
যারা চিরদিন উৎপীড়নের মধ্যেও গান গায় ।
যার হাহাকার পর্যন্ত রূপান্তরীত হয় সংগীত শোভায়,
আমি চারদিকে চেয়ে দু’চোখ ভরে তার শোভা দেখি
সঙ্গীতে শিহরিত হতে দেখি বন আর প্রান্তর ।

তোমার অশ্রু-বিন্দু পৃথিবীর সবচেয়ে সুন্দর হীরকের চেয়েও সুন্দর,
তোমার সিক্ত কেশ-রাশি, আকাশের উজ্জ্বল মেঘমালার চেয়েও উজ্জ্বল,
তুমি তাকালেই সৌন্দর্য আছড়ে পড়ে সূর্যাস্তে, চন্দ্রোদয়ে, শিশিরে, সমুদ্রে,
নদীতীরে, জোছনায়, বুনোঘাসে ।

তোমার বিরহের নাম চণ্ডীদাস,
শব্দ-ব্রহ্মের উল্লাস নিনাদ কাজী নজরুল,
অশ্রবিন্দুর বিগলিত প্রতিটি ফোঁটা জীবনানন্দ,
আর সমগ্র ভালোবাসার নাম রবীন্দ্রনাথ ।

আমি তোমার সৌন্দর্যের সীমা পাই না, খুজতেও যাই না,
শুধু এটুকু জানি- তুমি নাচলেই, নেচে উঠে ময়ূর,
তুমি ‘সুন্দর’ বললেই, প্রস্ফূটিত হয় পৃথিবীর তাবৎ পুষ্পকূল ।

হঠাৎ হঠাৎ-
তুমি চঞ্চল হয়ে ছড়িয়ে পড়ো মাঠে,
দুঃখ হয়ে কেঁপে উঠো আমার আত্মায় ।
প্রাণে বেহাগের সুর তোলে-
স্বপ্ন হয়ে ধরা দাও মনের মনিকোঠায় ।

এক সময় দেখি-
তোমার আর আমার অস্তিত্ব এক হয়ে গেছে সূর্যাস্তের সন্ধ্যায়,
সুখে, দুখে, উল্লাসে-বিদ্রোহে, জয়ে আর পরাজয়ে অভিন্ন আমরা-
মিশে আছি এই জন্ম-মৃত্যুর তীরে,
অনেক বছর ধরে, অনেক বছর পরে…

Comments

Leave a Reply