January 22, 2018 12:23 pm

ফলটি মিষ্টি, রসালো ও তৃপ্তিকর

সারাবিশ্বে জনপ্রিয় ফলগুলোর
একটি আনারস। ফলটি মিষ্টি, রসালো ও
তৃপ্তিকর।
সবচেয়ে বড়কথা পুষ্টিগুণে ভরা এ
ফলটি।
এ ফলটিতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ,
সি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস
এবং পটাশিয়াম রয়েছে। এ ছাড়া এ
ফলটিতে প্রচুর পরিমাণ আঁশ ও
ক্যালোরি রয়েছে। এটি কলস্টেরল ও
চর্বিমুক্ত। তাই স্বাস্থ্য সুরক্ষায় এ
ফলের জুড়ি নেই।
আনারসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ
ভিটামি সি, যা ভাইরাস প্রতিরোধ
করে এবং গলা থেকে কফ দূর করে।
ঠাণ্ডা ইনফেকশন হয়ে নিউমোনিয়ায়
আক্রান্ত হলেও আনারস খেলে বেশ উপকার
পাওয়া যাবে।
আনারসে থাকা খনিজ পদার্থ
হাড়কে মজবুত করে। এক কাপ আনারসের
রসে পুরো শরীরের খনিজ পদার্থের ৭৩ শতাংশ
পর্যন্ত পূরণ করতে পারে। দাঁতের
মাঢ়ি নিয়ে যারা দুশ্চিন্তগ্রস্ত
তারা নিয়মিত আনারস খেলে দাঁতের
মাঢ়ি সুস্থ ও মজবুত হয়। গরম-ঠাণ্ডার
জ্বর, জ্বরজ্বর ভাব দূর করে এই ফল।
এতে রয়েছে ব্যথা দূরকারী উপাদান। তাই
শরীরের ব্যথা দূর করার জন্য এর অবদান
গুরুত্বপূর্ণ। আনারস কৃমিনাশক।
কৃমি দূর করার জন্য
খালি পেটে (সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে)
আনারস খাওয়া উচিত।
এ ছাড়া এই ফলটি দেহে রক্ত জমাট
বাঁধতে বাধা দেয়। ফলে শিরা-ধমনির
(রক্তবাহী নালি) দেয়ালে রক্ত না জমার
জন্য সারা শরীরে সঠিকভাবে রক্ত
যেতে পারে। হৃৎপিণ্ড আমাদের
শরীরে অক্সিজেনযুক্ত রক্ত সরবরাহ করে।
আনারস রক্ত পরিষ্কার
করে হৃৎপিণ্ডকে কাজ করতে সাহায্য
করে এবং দেহের তৈলাক্ত ত্বক, ব্রণসহ সব
রূপলাবণ্যে আনারসের যথেষ্ট কদর রয়েছে।
পোস্টটি আপনাদের উপকারে এলে লাইক ও
শেয়ার করুন এবং কমেন্টে আমাদের
একটা thnx / ধন্যবাদ জানাইয়েন।
সবাইকে ধন্যবাদ।

Comments

Leave a Reply