January 23, 2018 11:46 pm

বাংলা কবিতা (আত্নহনন)

আত্নহনন

– তাওহীদ দিনাজপুর

আড্ডা তোমায় দিলাম ছুটি,
পুরতোন টার ধরছি টুটি।
চাইবনা আর গলায় মিল,
হয় যদি হোক হাতের কিল।

বাংলা কবিতা

বাংলা কবিতা

বন্ধুত্বের উঠানে বেড়ি,
স্বার্থ তোমার থামবে খেড়ি।
হৈচৈ তোমার আবারো ভয়,
নিরবতার বুঝি আবারো জয়।
অকাল সকাল বিকেল বকাল,
থাকবেনা পাতা অবসরে তাল।
সরলতা সব তোমায় দিলাম,
আত্নভোলা তো আগেই ছিলাম।
স্ব সার্থ আজ নিয়েছে পিছু,
পশ্চাৎ পানে হবেনা কিছু।
আচারেতে এখন লবন বেশি,
সৎ সাহসে ফুলেছে পেশি।
পরোপকারের মাতাল দশা,
কেননা মূর্খ মাতাল সার্থকতা।
থাকবেনা কেউ হাত বাড়িয়ে,
রোমিও জুলি সব হারিয়ে।
বিবস্ত্র বাসনা উহ্য রেখে,
সাহিত্যের সুগন্ধ মেখে,
অমরত্বের খোজে ব্যস্ত চিত্ত্ব।
জীবন মঞ্চের ব্যর্থ নৃত্য।
উপেক্ষিত বর্তমান আজ,
নিষ্ঠুরতা হারিয়েছে লাজ।
কতজন আজ কত কি বলে,
একটু শোনাই কবিতার ছলে।
ইহকালে তোর হবেনা কিছু,
অবহেলা তোর নিয়েছে পিছু।
একদিন তুই বুঝবি ভাই,
নেই আপনজন নেই কোনো ঠাই।
স্বপ্ন তোর দুঃ স্বপ্নের মতো,
মরিচিকার তরে ছুটবি কত।
এতো কবিতার কোনো মানে নাই,
এ জীবনে শুধু টাকা কেনো চাই।
দিন তো আমার আসবেই কভূ,
পরকাল যে নিয়েছে পিছু।
চাইনা আজও অজস্র টাকা,
হয় যদি হোক ইহকাল ফাকা।
পাগলই পরে সফলতা পাবে,
পরকালে সে ক্ষমা কেনো চাবে,
সুস্থ মানব বুঝবি এবার,
মিথ্যের ছলে পালাবি কবার।
সব ভালো তার শেষ ভালো যার,
বলি ইহকাল কার পরকাল কার।

Comments